https://sylhet24.net/home/news_description/7507

পুরো জাতীয় সংগীত ‘চুরি’, ধরা পড়লো ২৫ বছর পর!

প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন Print

অলিম্পিকে ইসরায়েলের স্বর্ণপদক, ভারতের সুরকার আনু মালিক ও ১৯৯৬ সালের বলিউড সিনেমা ‘দিলজালে’ ছবির একটি গান; মিলটা কোথায়?


টোকিও অলিম্পিকে শৈল্পিক জিমন্যাস্টিক বিভাগে সোনা জেতার পরই বেজে ওঠে ইসরায়েলের জাতীয় সংগীত ‘হাতিকভাহ’। তাতেই মিলটা পাওয়া গেলো পরিষ্কার। ২৫ বছর আগের আনু মালিকের সুর করা হিন্দি সিনেমা ‘দিলজালে’র ‘মেরা মুলক মেরা দেশ’ গানটিই যেন অন্য ভাষায় শুনলেন অলিম্পিকের ভারতীয় দর্শকরা!

এমনিতে আনু মালিকের বিরুদ্ধে সুর নকলের অভিযোগ আগেও উঠেছিল। তাই বলে একটি দেশের আস্ত জাতীয় সংগীত কপি করে দেওয়াটা একটু বাড়াবাড়ি বটে। কপি করা সুরে হিন্দি গানটাও আবার দেশাত্মবোধক। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, এতদিন এটি কেউ ধরতেই পারেনি। আনু মালিকও সম্ভবত ধরে নিয়েছিলেন, যেচে কে শুনতে ইসরায়েলের জাতীয় সংগীত! আর তাই কপি ধরা পড়লো ২৫ বছর পর!

অলিম্পিকে ‘হাতিকভাহ’ বেজে ওঠার পর পরই ঝড় ওঠে নেটপাড়ায়। একের পর এক আসতে থাকে ট্রলের ঢেউ।

ট্রলকারীদের মধ্যেও দেখা গেছে দারুণ সৃজনশীলতাও। একজন লিখেছেন, ‘শুধু গানের সুর কপি করাটাই বড় কথা নয়। এ নিয়ে বিস্তর গবেষণাও করতে হয়েছে। কোনও দেশের পক্ষে সহসা অলিম্পিকে সোনা জেতা সম্ভব নয় এটা বের করা চাট্টিখানি কথা নয়।’ (কারণ স্বর্ণ জিতলেই তো জাতীয় সংগীত বেজে উঠবে!)

আরেকজন লিখেছেন, ‘আনু মালিক নিঃসন্দেহে সাহসী মানুষ। তা না হলে কেউ ইসরায়েলের জাতীয় সংগীত কপি করে!’

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

Editor: Mohammad Shakir Hossain

122 Albert Road, London,UK