বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

কাশ্মির সীমান্তে ভারত-পাকিস্তান সংঘর্ষ, নিহত অন্তত ১০



f360f1e1db4cf205e1ae15a62344f462-5dac1fd62cd33

অনলাইন ডেস্ক: 

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার কাশ্মির সীমান্তে রবিবার দুই পক্ষের গোলাগুলিতে প্রায় ডজনখানেক প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। পাকিস্তানের পক্ষ থেকে তাদের সাতজন এবং ভারতের পক্ষ থেকে তাদের তিনজন নিহতের খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। এদিকে উভয় পক্ষের পরস্পরবিরোধী দাবি বিবেচনায় নিলে নিহতের সংখ্যা দেড় ডজন ছাড়িয়েছে।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানিয়েছে, সীমান্তে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিতে দুই ভারতীয় সেনাসহ তিনজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও তিন বেসামরিক। অন্যদিকে কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে পাকিস্তানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে, নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারতীয় বাহিনীর নির্বিচার গুলিবর্ষণে পাকিস্তানের এক সেনাসদস্য ও ছয় বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে। ২০১৯ সালে একদিনে ভারতীয় বাহিনীর হামলায় এটিই সর্বোচ্চ প্রাণহানি। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও নয়জন।

এনডিটিভি জানিয়েছে, কুপওয়ারা জেলার তনঘর সেক্টরে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পোস্ট লক্ষ্য করে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিবর্ষণ করলে সেনাসদস্যসহ বেসামরিক নাগরিকের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। তবে ভারতীয় বাহিনীও পাল্টা গুলিবর্ষণের মধ্য দিয়ে উপযুক্ত জবাব দিয়েছে। এতে পাকিস্তান সীমান্তের অভ্যন্তরে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

আরেক প্রতিবেদনে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মিরের চার ‘সন্ত্রাসী আস্তানা’ গুঁড়িয়ে দেওয়ার দাবি করেছে ভারত। জি নিউজের খবরে বলা হয়েছে, রবিবার ভারতীয় বাহিনীর চালানো এ অভিযানে চার থেকে পাঁচজন পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়েছে। গুলি করে হত্যা করা হয়েছে কমপক্ষে ১০-১৫ জঙ্গিকে।

টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর (আইএসপিআর) জানিয়েছে, ভারতীয় বাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে এক সেনাসদস্য শহীদ হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও দুইজন। এ সময় পাকিস্তানের পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় ৯ ভারতীয় জওয়ান নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও অনেকে। দুই ভারতীয় বংকার তছনছ করে দেওয়া হয়েছে।

পাকিস্তানের দাবি, বিনা উসকানিতে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে হামলা চালিয়েছে ভারত। অন্যদিকে ভারতের পক্ষ থেকেও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একই রকম অভিযোগ আনা হয়েছে। সূত্র: এনডিটিভি, ডন।