সোমবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

মাথা গোজাঁর ঠাঁই চান মুক্তিযোদ্ধা কৃপেশ দাশ



muktijuda-kripesh

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:
দেশ স্বাধীনতার এত বছর পরও একটু মাথা গোঁজার ঠাই হয়নি জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের মেঘারকান্দি গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা কৃপেশ চন্দ্র দাশের। ভাড়া বাসায় শয্যাশায়ী কৃপেশ স্বাধীন দেশে নিজগৃহে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার শেষ ইচ্ছে পোষণ করে শুধু আক্ষেপ করছেন। সম্প্রতি মেঘারকান্দি এলাকায় এক ভাড়াবাসায় এ প্রতিনিধির সাথে কথা হয় মুক্তিযোদ্ধা কৃপেশ চন্দ্র দাশের।

তিনি ৭১ এর সালের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় তিনি ২২ বছরের যুবক। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তিনি দেশ মাতৃকার সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন। ভারত থেকে ট্রেনিং নিয়ে মেজর শওকত আলীর নেতৃত্বে ৫নং সেক্টরে টেকেরঘাট এলাকায় তিনি সক্রিয় যুদ্ধে অংশ নেন। দেশ স্বাধীনের পর দেশে ফিরে পূর্বপুরুষের রেখে যাওয়া সহায় সম্বল কিছুই আর পাননি। সবকিছু হারিয়ে তিনি নিঃস্ব হয়ে জীবিকার সন্ধানে ঘুরে বেড়ান। স্ত্রী ও চার মেয়ে নিয়ে চলে সংসার। অনেক কষ্ট করে তিন মেয়ের বিয়েও দেন। স্ত্রী মারা যাওয়ার পর একমাত্র মেয়েকে নিয়ে তিনি ভাড়াবাসায় বসবাস করতে থাকেন। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রাপ্ত ভাতা দিয়ে চলে সংসার। গত এক বছর ধরে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। স্বজনদের সহযোগিতায় অপারেশন করে তিনি এখন কিছুটা সুস্থ হলেও গৃহবন্দি অবস্থায় জীবন যাপন করছেন।’

তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, ‘স্বাধীন এই দেশে আমার মাথাগোঁজার ঠাঁই নেই এর চেয়ে দুঃখ কী আর থাকতে পারে।’ তিনি সরকারের নিকট একখন্ড খাস জমির ও শেখ হাসিনার মুক্তিযোদ্ধাদের দেয়া উপহার বীর নিবাস পাওয়ার আবেদন করে বলেন, ‘মেয়েটিকে বিয়ে দিয়ে যেন নিজগৃহে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করতে পারি এটাই আমার চাওয়া।’