সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

ভারতের শিলং এর শুরু হয়েছে দুদিন ব্যাপী নদী উৎসব



13692259_10153830603059779_1194488255_oশাকির হোসাইন, শিলং থেকে
ভারত বাংলাদেশ নেপাল ভূটান ও মিয়ানমারের নদী গুলোকে পারস্পরিক সহযোগীতার মাধ্যমে আর্থসামাজিক উন্নয়নে ব্যবহার করতে মেঘালয়ের রাজধানী শিলংয়ে শুরু হয়েছে দুদিনব্যাপী নদী উৎসব। সকালে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী ডক্টর মুকুল সাংমা। সম্মেলনে স্বগতিক ভারত ছাড়াও বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, মায়ানমারের প্রতিনিধিরা অংশ নিচ্ছেন।
সেমিনারে বক্তারা বলেন, কৃত্রিম বাউন্ডারি দেয়াল দিয়ে নদীগুলোকে বেধে রাখা অসম্ভব। এদের প্রাকৃতিক প্রবাহকে অব্যাহত রাখতে হবে।” আমাদের উত্তর পূবাঞ্চলের দেশগুলোর যে নদীগুলো প্রবাহিত হয়েছে তা একে অন্যের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক জীবন ধারাকে আবহমান কাল ধরে সচল রেখেছে। এগুলোর সঠিক প্রবাহকে রাজনৈতিক বাউন্ডারি দিয়ে আটকে রাখা সম্ভব নয় । এরফলে দীঘর্স্থায়ী সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ভৌগলিক সম্পক নষ্ট হয়। তাই দেশ, জাতি, ধর্ম, রাজনীতি নিবির্শেষে এ অঞ্চলের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর স্বাথে নদীর প্রাকৃতিক প্রবাহকে অব্যাহত রাখতে হবে বলে মত দেন মন্ত্রীরা।
শুক্রবার সকালে শিলংয়ের স্টেট কনভেনশন সেন্টারে মেঘালয় রাজ্য সরকার আয়োজিত নদী সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের পর্যটন ও বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী শ্রীলাল তাহান হাওলা।
13728265_10153830602764779_154540811_oএছাড়া নেপাল, ভুটান, মায়ানমারের প্রতিনিধিরাও উপস্থিতছিলেন। উত্তর-পূর্ব ভারতের প্রতিবেশি দেশ বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, মায়ানমারের যোগসূত্র তৈরি করেছে প্রায় একশোটি নদী। এই সম্পর্ক হাজার বছরের। ব্যবসা বাণিজ্য, শিল্প-সংষ্কৃতি-কৃষ্টির সাম্যতা এই যোগসূত্রের ফসল। পাশাপাশি এই নদী সম্পদ এই অঞ্চলের মানুষ আর্থ-সামাজিত ও রাজনৈতিক ভাবে ক্ষত্রিগ্রস্তও হয়েছে। ঐকমেত্যর মাধ্যমে এই অঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রায় এই নদীগুলোর ব্যবহারে ইতিবাচক প্রভাব আনার উদ্দেশ্যে এই সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে বলে সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।
 তাই দেশ, জাতি, ধর্ম, রাজনীতি নিবির্শেষে এ অঞ্চলের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর স্বাথে নদীর প্রাকৃতিক প্রবাহকে অব্যাহত রাখতে হবে
পলিসি ডায়লগ সেশনে ভারতের মিজোরাম প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী লালথান হাওলা, মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী ড.মুকুল শরমা, বাংলাদেশের পযর্টনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাস্ট্রদূত সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন, ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের রাস্ট্রদূত হষর্বধন স্রিংলা।
ভারতের শিলংয়ে আজ সকাল থেকে শুরু হওয়া এ সম্মেলন চলবে কাল বিকেল পযন্ত।