সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

আইন পালন ও প্রয়োগে জেলা প্রশাসকের নোটিশ জারি



full_1287556921_1441100412

ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫ এবং সংশোধিত আইন ২০১৩ পালন ও প্রয়োগে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিয়েছেন সিলেটের জেলা প্রশাসক মো: জয়নাল আবেদীন।

মঙ্গলবার জেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ওসমানী বিমানবন্দর, সিলেট রেলওয়ে স্টেশন, মেট্রোপলিটন পুলিশ ও জেলা পুলিশের সকল কার্যালয়, ফাঁড়ি ও পুুলিশ বক্স, হোটেল-রেস্তোরাঁ এবং আইনে উল্লেখিত পাবলিক প্লেস ধূমপানমুক্ত করার এবং মোবাইল কোর্ট পরিচালনার নির্দেশ দেয়া হয় সংশ্লিষ্টদের।
নোটিশে সকল উপজেলা পর্যায়েও এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নের তাগিদ দেয়া হয়।

নোটিশে এসব প্রতিষ্ঠানের পাবলিক প্লেসে সতর্কীকরণ নোটিশ “ধুমপান হইতে বিরত থাকুন, ইহা শাস্তিযোগ্য অপরাধ” স্থাপন করতেও কথা বলা হয়।
আইন অনুযায়ী,যদি কোন ব্যক্তি বিজ্ঞাপন, প্রচারণা ও পৃষ্ঠপোষকতার সাথে জড়িত থাকেন আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক অনুর্ধ্ব তিন মাস বিনাশ্রম কারাদন্ড ও অনধিক এক লক্ষ টাকা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা হবে। ওই ব্যক্তি দ্বিতীয়বার বা পুনঃ পুনঃ একই অপরাধ সংগঠন করলে তিনি পর্যায়ক্রমে উক্ত দন্ডের দ্বিগুণ হারে দন্ডনীয় হবেন।

নোটিশে আরো বলা হয়, ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য (নিয়ন্ত্রণ) আইন (সংশোধিত) এবং বিধিমালা ২০০৫ এর ৭ এর (ক) এর আলোকে পাবলিক প্লেসের মালিক, তত্ত্বাবধায়ক, নিয়ন্ত্রণকারী বা ব্যবস্থাপক সংশ্লিষ্ট পাবলিক প্লেসকে ধূমপানমুক্ত রাখবেন এবং “ধূমপান হইতে বিরত থাকুন ইহা শাস্তিযোগ্য আপরাধ” লেখা সম্বলিত সতর্কীকরণ নোটিশ বাংলা ও ইংরেজী ভাষায় প্রদর্শনের ব্যবস্থা করবেন। বর্ণিত কর্মকর্তারা যদি নিজ নিজ পাবলিক প্লেস ধূমপানমুক্ত রাখতে না পারেন-তাহলে তিনি পাঁচশত টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন এবং সতর্কীকরণ নোটিশ প্রদর্শন না করলে এক হাজার টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত হবেন। আইন অনুযায়ী বিজ্ঞাপন অপসারণ ও সব ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশ কমিশনার, পুলিশ সুপার, বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ, রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও প্রধান শিক্ষকগণ এবং হোটেল ও রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষের প্রতি নোটিশ প্রেরণের মাধ্যমে অনুরোধ জানান জেলা প্রশাসক।