সোমবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

আদালতে যাচ্ছেন না খালেদা



Khaleda2বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির দুটি মামলার শুনানি বুধবার। পুরান ঢাকার বকশিবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে এই শুনানি অনুষ্ঠিত হলেও খালেদা জিয়া আদালতে যাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টে নামে এই দুটি মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি রয়েছে।

এর সঙ্গে সিএমএম আদালত থেকে তার গুলশান কার্যালয়ে তল্লাশির একটি পরোয়ানা রয়েছে, যেটি ইতোমধ্যে গুলশান থানায় পৌঁছেছে। এ পরোয়ানা প্রত্যাহারে করা খালেদার একটি আবেদনের ওপর হাইকোর্টে আজ শুনানি হবে।

এছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরদ্ধে জারি করা গ্রেফতারি পরোয়ানা স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে সম্পূরক আরেকটি আবেদনও করেছেন তার আইনজীবীরা।

তবে আবু আহমেদ মজাদারের নেতৃত্বে বকশিবাজারের বিশেষ জজ আদালত-৩- এ বুধবারের শুনানিতে খালেদা জিয়া হাজির হচ্ছেন না, এটা নিশ্চিত করেছেন তার আইনজীবীরা।

নিরাপত্তার কারণে বিএনপি চেয়ারপারসন আদালতে যাচ্ছেন না। তার পরোয়ানা প্রত্যাহার চেয়ে আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া।

তিনি বলেন, আমরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে পারিনি। আদালতে আসার জন্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার নিরপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেননি। এজন্য তার আসাটা নিরাপত্তার ঝুকি থেকে যাচ্ছে তাই বেগম জিয়া আদালতে আসছেন না।

তাছাড়া আইনজীবীদের যুক্তি, বিচারাধীন দুর্নীতির দুটি মামলার বিচারক পরিবর্তন চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা রয়েছে। তার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নিম্ন আদালত মামলার কার্যক্রম চালাতে পারে না।

এমন প্রেক্ষাপটে নানা ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। খালেদা জিয়া আদালতে না গেলে তার বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নেয়া হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই গেছে। তবে একটি পক্ষ মনে করছে, খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করা হতে পারে।

কিন্তু বুধবার সকাল পর্যন্ত কোনো থানা এই গ্রেফতারি পরোয়ানা পেয়েছে বলে স্বীকার করেনি।

সকাল ১০ টার দিকে আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তবে খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজিরে কোনো লক্ষণ গুলশান কার্যালয় কিংবা এর আশপাশে দেখা যায়নি।

সকাল সোয়া ১০টার দিকে গুলশানে খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে থেকে বলেন, অন্যদিনের মতই এখানকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক। বাড়তি কোনো নিরাপত্তা নেই। যারা দায়িত্ব পালন করছেন, তাদের কাছেও এ ধরনের কোনো নির্দেশনা নেই।

গুলশান কার্যালয়ের পরিবেশও অন্যদিনের মত বলে ভেতর থেকে ঘুরে এসে জানান তিনি। চেয়ারপারসনের প্রেস উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার অরটিএনএন- কে বলেছেন, ‘সবকিছুই ঠিকঠাক রয়েছে। সম্ভবত ম্যাডাম আদালতে যাবেন না।’

গ্রেফতার বিষয়ে এক প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কার্যালয়ে অবস্থান করা কেউই এ নিয়ে বিচলিত নয়।’