শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা জারির ফলে গণমাধ্যম অধিক দায়িত্বশীল হবে…. প্রধানমন্ত্রী



PM

জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালায় কোনো অসম্পূর্ণতা থাকলে আইনের মাধ্যমে তা পূরণ করা হবে এবং এ জন্য সংশ্লিষ্ট সবার মতামত নেওয়া হবে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নীতিমালার ধারাবাহিকতায় একটি স্বাধীন সম্প্রচার কমিশন গঠনে আইন প্রণয়নের কাজ চলছে বলেও জানান তিনি।

বুধবার সংসদে নির্ধারিত প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা জানান। তিনি বলেন, গণমাধ্যম যাতে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে, সে জন্য জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে।

জাতীয় পার্টির সাংসদ নুরুল ইসলামের এ-সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালার খসড়া প্রণয়নের জন্য ২০১২ সালের ১ নভেম্বর ১৬ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল।

কমিটিতে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, এনজিও প্রতিনিধি, আইন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি, তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি ও বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির প্রতিনিধিরা ছিলেন।

তিনি আরও বলেন, তাঁরা বিবিসিসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর নীতিমালা পর্যালোচনা করে খসড়া চূড়ান্ত করেন।

অ্যাসোসিয়েশন অব টিভি চ্যানেল ওনার্স (এটকো) আর্টিকেল-১৯, টিআইবি, এনজিও নেটওয়ার্ক ফর রেডিও অ্যান্ড কমিউনিকেশনস, কম্পিউটার সমিতি, পত্রপত্রিকাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মতামতের ভিত্তিতেই মন্ত্রণালয় চূড়ান্ত খসড়া তৈরি করে।

পরে মন্ত্রিসভা গত ৪ আগস্ট সামান্য সংশোধনীসহ খসড়াটি অনুমোদন করে। কাজেই স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নীতিমালাটি প্রণয়ন করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

নীতিমালার সমালোচনাকারীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘এখন সমালোচকেরা যেসব প্রশ্ন উত্থাপন করছেন, খসড়া চূড়ান্ত করার আগে তারা তা উত্থাপন করেননি। কাজেই আমরা আশা করি, এই নীতিমালা জারির ফলে গণমাধ্যম অধিক দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবে।