শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

মৃত্যুর মিছিল কোথায় গিয়ে থামবে….



নাজাত পুরকায়স্থ:

দেশে ৮ মার্চ প্রথম করোনা আক্রান্ত শনাক্তের খবরের পরে ১৯ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এর পর থেকেই দেশে শনাক্ত আর মৃতের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। দেশে এখন করোনায় মোট শনাক্তের সংখ্যা এক লাখ ৭৮ হাজার ৪৪৩ জন। মৃতের সংখ্যা দুই হাজার ২৭৫ জনে। এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৮৬ হাজার ৪০৬ জন। বিশ্বের সাথে তুলনা করলে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দেশে অনেক কম। তারপরেও ঘনবসতিপূর্ণ এই দেশের জন্য করোনার মতো মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগ একটি বড় সমস্যা। সবদিক বিবেচনা করে বর্তমান পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগের।

করোনার প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে দেশজুরে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ব্যবস্থা করেছে সরকার। কিন্তু তাতে কী! দেশের মানুষ যেন উল্টো স্রোতে ভাসতে বেশি পছন্দ করেন, দুয়েকদিন ঘরে থাকেন, মাস্ক ব্যবহার করেন, সামাকজিক দূরত্ব বজায় রাখেন। তার পর কোনো না কোনো উসিলায় বের হয়ে আসছেন মাস্ক ছাড়া, মানেন না সামাজির দূরত্ব, করছেন যেখানে সেখানে ভীড়। করোনার স্রোত যে আমাদের মৃত্যুর ঠিকানায় নিয়ে যাচ্ছে ধীরে ধীরে তা বুঝতে পারছে না অনেকেই।

সারা দেশের মত সিলেটেও করোনার লাগাম কোন ভাবেই টেনে রাখা যচ্ছে না। সিলেটের চার জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বেড়েই চলছে। সিলেটে প্রথম ৫ এপ্রিল ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারি অধ্যাপক ডা. মঈনউদ্দিন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। ১৫ এপ্রিল ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। ৭ এপ্রিল থেকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়। তার পর থেকেই প্রতিদিনই নতুন করোনা রোগী সনাক্ত হচ্ছে বিভাগের জেলাগুলোতে। সব শেষ শুক্রবার নতুন আরো ৯৭ রোগী শনাক্ত হয়েছে বিভাগে। মৃত্যু হয়েছে আরো ২ জনের । সবমিলিয়ে সিলেট বিভাগে করোনাক্রান্তের সংখ্যা এখন ৫ হাজার ৭২৯ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৩০১২ জন, সুনামগঞ্জে ১১৬৫, মৌলভীবাজারে ৬৫৯ জন ও হবিগঞ্জ জেলায় ৮৯৩ জন রোগী রয়েছেন।

চার জেলায় মৃত্যু হয়েছে মোট ৯৭ জনের। শুধু সিলেট জেলায় মৃতের সংখ্যা ৭৬ জন, সুনামগঞ্জে আটজন, মৌলভীবাজার জেলায় সাতজন এবং হবিগঞ্জে ছয়জন রয়েছেন ।

সিলেট বিভাগে ২ হাজার ১১০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়েছেন। এর মধ্যে সিলেট জেলার ৬৩৯ জন, সুনামগঞ্জের ৭৮১ জন, হবিগঞ্জের ৩৬৭ জন ও মৌলভীবাজার জেলার ৩২৩ জন।

শুক্রবার পর্যন্ত সিলেট বিভাগে করোনায় আক্রান্ত ২৪৪ জন রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এর মধ্যে ১০৩ জন সিলেটের বিভিন্ন হাসপাতালে, সুনামগঞ্জের বিভিন্ন হাসপাতালে ৪৪ জন, হবিগঞ্জের হাসপাতালে ৭২ জন ও মৌলভীবাজারে ২৫ জন।

সংক্রামক মহামারীর ইতিহাস বলে, দূরত্ব বজায় রেখেই শুধুমাত্র দ্রুতগতিতে সংক্রমণ রোধ করা যায়। সে হিসেবে আমাদের এখনও সময় আছে সচেতন হবার। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করা, মাস্ক ব্যবহার করা, সেই সাথে ভীর বা আড্ডা পরিহার করা করোনাভাইরাসের এই প্রকোপ অনেকটাই কমাতে পারে, বন্ধ হতে পারে মৃত্যুর মিছিল।