রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

নেত্রকোনায় সুনামগঞ্জের ট্রলার ডুবি ; নিহত ১০



নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার গুমাই নদীতে বালুবাহী বলগেটের ধাক্কায় যাত্রীবাহী একটি ট্রলার ডুবে গেছে। এ ঘটনায় ১০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

আজ বুধবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার বরখাপন ইউনিয়নের রাজনগর গ্রাম সংলগ্ন গুমাই নদীতে বালুবাহী বড় নৌকার ধাক্কায় যাত্রীবাহী ট্রলারটি ডুবে যায়। সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগর থেকে সকালে যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি কলমাকান্দা হয়ে নেত্রকোনা সদর উপজেলার ঠাকুরাকোনা যাচ্ছিল।

নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার গুমাই নদীতে ট্রলারডুবির ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের আহাজারি। ছবি : এনটিভি

নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার গুমাই নদীতে বালুবাহী বলগেটের ধাক্কায় যাত্রীবাহী একটি ট্রলার ডুবে গেছে। এ ঘটনায় ১০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

আজ বুধবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার বরখাপন ইউনিয়নের রাজনগর গ্রাম সংলগ্ন গুমাই নদীতে বালুবাহী বড় নৌকার ধাক্কায় যাত্রীবাহী ট্রলারটি ডুবে যায়। সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগর থেকে সকালে যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি কলমাকান্দা হয়ে নেত্রকোনা সদর উপজেলার ঠাকুরাকোনা যাচ্ছিল।

নিহত ১০ জন সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার। নিহতদের মধ্যে চারজন শিশু, তিনজন নারী ও তিনজন পুরুষ। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, তাদের সবার বাড়ি ধর্মপাশার মধ্যনগর থানার কামাউড়া গ্রামে।

কলমাকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সোহেল রানা জানান, বালুবোঝাই বড় নৌকার ধাক্কায় ৩০ থেকে ৩৫ জন যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি ডুবে যায়। এখন পর্যন্ত ১০ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ট্রলারে থাকা যাত্রীদের মতে ১০ থেকে ১৫ জন নিখোঁজ রয়েছে। তাদের উদ্ধারে তৎপরতা চলছে।

খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান ও পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসী জানান, ট্রলার ডুবির ঘটনায় মৃতদের লাশ ময়না তদন্ত ছাড়াই স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে।
জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান জানান, মৃতদের লাশ বাড়ীতে নিয়ে যাওয়া ও দাফন কাপনের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাৎক্ষনিক মধ্যনগরের নিহত ৯টি পরিবারের প্রত্যেককে দশ হাজার টাকা করে এবং নেত্রকোনা সদরের মেদনী গ্রামের নিহত একটি পরিবারকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।